আত্মীয় ~ পরমানু গল্প [ স্বদেশ কুমার গায়েন ]


কেউ পল্টু, কেউ ছোকরা বলে ডাকে     ছেলেটিকে। নিজের নামটা কি, সে জানে না।     রোগা কঙ্কাল চেহারা,পরনে একটা ময়লা ছেঁড়া     গেঞ্জী। স্টেশনে ট্রেন ঢুকলেই ছুটে যায়,"বাবু,     ব্যাগ টা দিন আমি বয়ে নিয়ে যাচ্ছি"।
স্টেশন থেকে বাবুদের ব্যাগ মাথায় করে গাড়ী   তে পৌঁছে দেওয়া তার প্রতিদিনের কাজ। এই   ভাবে বিশ- তিরিশ টাকা যা জোটে, তাই দিয়ে   সারা দিন কিছু খেয়ে বেঁচে থাকে সে। যেদিন   কেউ খুশি হয়ে বেশি বকশিস দেয়, সেদিন তার   মুখটা হাসিতে ভরে ওঠে; ভাবে আজ সে   হোটেলে খাবে। বাবা- মা কে সে কোনো দিন   দেখেনি। ছোটো থেকেই সে এই স্টেশনে পড়ে   আছে — স্টেশনের ছেলে হয়ে।
একদিন রাতে, দোকান থেকে বাসি পোড়া   পাঁউরুটি কিনে,  স্টেশনের ল্যাম্প পোস্টের   পাকা শানের উপর এসে বসে ছেলেটি । একটু   একটু করে রুটি ছিঁড়ে চিবোতে থাকে। ফাঁকা   স্টেশন,শেষ ট্রেন চলেও গেছে। কোথা থেকে   একটা হাড় জিরজিরে কুকুর এসে তার পাশে   কুঁই কুঁই ডাকতে থাকে। কি যেন মনে হয়   ছেলটির— এক টুকরো রুটি ছিঁড়ে কুকুর টিকে   খেতে দেয়। এক সাথে দুটি প্রানী খেতে থাকে।
রাতের স্টেশনের সেই নিয়ন আলোয়,ছেলেটি  যেন তার এক আত্মীয় কে খুঁজে পায়।
স্বদেশ কুমার গায়েন [২০১৫]

No comments

Powered by Blogger.