একটি প্রেমের কবিতা " অনসূয়া "



অনসূয়া,
চলো, বৃষ্টি ভেজা সবুজ পাহাড়ের বুকে মাথা রাখি। দুহাতে জড়িয়ে কোলে তুলে নেব তোমায়। চা পাতার মতো তোমার চোখের পলক থেকে পাহাড়ি বর্ষা টুপ টুপ করে পড়ে আমার ঠোঁট ছুঁয়ে দেবে।
..... বর্ষাতি মুড়ে হেঁটে যাব আঁকা-বাঁকা পাথুরে পাহাড়ি রাস্তায়;
তোমার হাতে আমার হাত
তোমার মনে আমার মন
অথবা, তোমার ঠোঁটে আমার ভেজা আঙুল।

অনসূয়া,
চলো, চেরাপুঞ্জির বৃষ্টিতে স্নান করে আসি। তোমার চুলের মতো কালো মেঘ গুলো কে চুরি করে এনে রেখে দিই, আমার ছাদের উপর;
তোমার পরশের আদরে মেঘেরা কাঁদবে
বৃষ্টি নামবে,
অন্তহীন ভিজবো
বর্ষা ময়ূরী হবে তুমি।
.....অথবা, বর্ষনসিক্ত হেঁতাল বন।

অনসূয়া,
চলো,মেঘের ভেলায় চড়ে ঘুরে আসি নীল
আকাশের দেশে; বক ফুলের মতো থোকা থোকা মেঘ ভেঙে, বালি হাঁসের পালকের মতো তোমার চুলে পরিয়ে দেব ।
মেঘ সমুদ্রের বেলাভূমি তে রেখে আসবো তোমার আমার পায়ের ছাপ,
ঠোঁটের আদর....।
... একটা রাত কাটাবো মেঘের দেশে।
রামধনু শাড়িে মেঘের ঘাটে বসে থাকবে তুমি, স্বপ্নটানা রাত; আকাশের কপাল থেকে, দশটা তারার ঝিকমিক এনে পরিয়ে দেবো,
তোমার হাতের আঙুলে.....।

অনসূয়া,
চলো, তালবন ঘেরা পদ্ম দিঘির জলে পা ডুবিয়ে বসে থাকবো,
সন্ধ্যে নামবে
পাখিরা ফিরবে বাসায়
জোনাক জ্বলবে
কালো হবে দিঘির জল
তখন তোমার কাঁধে আমার মাথা;
ভালোবাসার গল্প তৈরী হবে..................।

অনসূয়া,
তোমার চোখের অতলে, বাবুই পাখির মতো স্বপ্নের বাসায় আমি আশ্রয় খুঁজেছি,
তোমার হাত ধরে হাঁটতে চেয়েছি, শালবনের ভিতর দিয়ে লাল মাটির রাস্তায়;
বাঁচতে চেয়েছি, তোমার গল্প-কথার মধ্যে।
হয়তো তুমিও সেটা জানো না.........!


স্বদেশ কুমার গায়েন ( ২০১৬)

No comments

Powered by Blogger.