দু'টি পরমানু গল্প "বিকেলের মেয়ে এবং পোষ্য "



বিকেলের মেয়ে



নতুন স্টেশন মাস্টারের চাকরী পেয়েছি। আমার চাকরী হয়েছিল পশ্চিম মেদিনীপুরেরর একটি স্টেশনে।মফস্বল বলা যায় না জায়গাটি কে। লাল পাথুরে,ছোট্টো,নির্জন, গ্রাম্য স্টেশন। সারাদিনে বেশীরভাগ এক্সপ্রেস ও মালগাড়ী চলে।আর তার মাঝে কয়েকটা প্যাসেঞ্জার ট্রেন।যখন একটু কাজে ফাঁকা পাই স্টেশন টা ঘুরে দেখি।গাছ-গাছালিতে ঘিরে রেখেছে প্লাটফর্ম টি কে।হরেকরকম ফুলের গাছ।তার উপর আম, বট মেহগনি তো আছেই।

প্রতিদিন একটা মেয়েকে,বিকালে প্লার্টফর্মে বসে থাকতে দেখি।আমার কেবিনের ঠিক ওপর পারের প্লাটফর্মে মেয়েটি বসে থাকে।যেদিন থেকে আমি এখানে কাজে যোগ দিয়েছি সেদিন থেকেই দেখে আসছি তাকে।রোজ চুপ করে বসে খোলা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকে।কখনো নির্বাক হয়ে রেল লাইনের দিকে চেয়ে থাকে। সুন্দরী, ফর্সা, যৌবনবতী চেহারা।মেয়েটিকে ভাল লাগে আমার।কথা বলতে ইচ্ছে করে। ভালোবাসতেও।

এক স্টাফ কে জিজ্ঞেস করলাম।-"ওই মেয়েটি  কে বলোতো?প্রতিদিন প্লাটফর্মে এসে বসে থাকতে দেখি!"

সে বলল,–" মেয়েটা পাগল,স্যার।ওর স্বামী রেলে চাকরী করত।এখানেই ট্রেনে কাটা পড়ে। তারপর থেকে,প্রতিদিন এসে বসে থাকে।"


পোষ্য


সেদিন রাত হল বাড়ি ফিরতে।রোজ অফিস থেকে সোজা বাড়ি চলে আসি। কিন্তু আজ একটি বন্ধুর বাড়ি যেতে হল।আমরা একই সাথে অফিসে কাজ করি।বন্ধুর বোনের জন্মদিন ছিল।সেই জন্মদিন সেরে বাড়ি ফিরতে একটু রাতই হয়ে গেল। বাড়ির সামনে এসে গেট ঠেলে ভেতরে  ঢোকার সময় কুকুরটি কে দেখতে পেলাম। লালচে,হাড়গিলে চেহারা।অতটা পাত্তা দেয় নি। এরকম কত কুকুর রাস্তায় ঘুরে বেড়ায়। ভেতরে ঢুকে গেটে তালা দেওয়ার সময় আমার চোখটা চলে গেলো কুকুরটির দিকে।এক করুন আর্তি নিয়ে ফ্যাল ফ্যাল করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে।মনে হয় কিছু খেতে পায়নি সারাদিন।

গেট বন্ধ না করে খুলে দিলাম।দেখলাম কুকুরটা ভেতরে এসে ঢুকলো।আমি ভেতরে গিয়ে ফ্রিজে রাখা কিছু খাবার এনে দিলাম। এক নিমেষে চেটে পুটে খেয়ে নিল সব।সেই থেকে কুকুর টিকে আমি খেতে দিই।আমার বাড়িতেই থাকে।

আমার চাকরীর বদলি হয়ে গেল। পোস্টিং ভুবনেশ্বর।ট্রেনে ওঠার সময়,কুকুর টি আমার পেছন পেছন প্লাটফর্মে এল।আমি কামরায় উঠতেই ককুর টিও কামরায় ওঠার চেষ্টা করলো।কয়েক জন লোক হ্যাট হ্যাট করে উঠতেই সে নীচে প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে রইলো। ট্রেন, প্লার্টফর্ম ছেড়ে দিয়েছে। একটু একটু করে গতি নিয়েছে।আমি দরজার কাছে দাঁড়িয়ে আছি।


হঠাৎ দেখি কুকুর টি রেল লাইন ধরে দৌড়চ্ছে,ট্রেনের পিছনে।চোখে জল চলে এল আমার।একটা দীর্ঘ নিশ্বাস ফেললাম....।


সমাপ্ত



    স্বদেশ কুমার গায়েন (২০১৬)

1 comment:

  1. 'Poshyo' golpo tate 'deoghorer smriti' r choya ache...

    ReplyDelete

Powered by Blogger.